English   Italiano
সুচীপত্র  |  আমাদের জীবন  |  জুবিলী বাইবেল  |  উপাসনা  |  খ্রীষ্টমণ্ডলীর পিতৃগণ  |  ডোনেশন   |  অন্যান্য আশ্রম  |  মানচিত্র

সাধু বেনেডিক্ট আশ্রম একটি খ্রীষ্টান আশ্রম যা খুলনা জেলার মহেশ্বরপাশায় অবস্থিত। ১৯৭৮ সালের জানুয়ারী মাসে যখন একজন ইতালীয় ব্রাদার (কার্লো রুবিনি) এবং একজন বাংলাদেশী যুবক (প্রেমানন্দ কর্মকার) এদেশে খ্রীষ্টীয় সন্ন্যাস জীবনের উপস্থিতির কথা ভাবলেন তখন থেকেই আশ্রমটি যাত্রা শুরু করল।

দশ বছর ধর্মীয় জীবনের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে অধ্যয়নে রত থেকে এবং তা এদেশের তৎকালীন সংস্কৃতির উপযোগী করার পর, মহেশ্বরপাশা নামক জায়গায় তারা একখণ্ড জমি কিনলেন এবং সে জমির উপরেই ১৯৮৯ সালে একটি ছোট আশ্রম নির্মাণ করলেন। পরে এটি ১৯৯০ সালে ইতালির প্রালিয়া নামক আশ্রমের শাখা হিসাবে স্বীকৃতি পায়।


মঠের ভিত্তিপ্রস্তর আশীর্বাদ (১০ ফেব্রুয়ারী ১৯৮৯)

সাধু বেনেডিক্টের আদর্শের অনুসারী সকল আশ্রমের মত এই আশ্রমের ব্রাদাররাও 'প্রার্থনা ও কাজ' এই প্রাচীন মূলসুর অনুসারে নিজেদের দৈনিক জীবন অর্থপূর্ণ করতে চেষ্টা করে।


মঠের প্রার্থনালয়

নিজস্ব ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক কর্মসূচীর মাধ্যমে এ আশ্রম স্থানীয় খ্রীষ্টমণ্ডলীর কল্যাণার্থে নিজ অবদান রাখার চেষ্টা করে। এক্ষেত্রে আশ্রম অধিক গুরুত্বপূর্ণ যে অবদান রেখেছে তা সম্ভবত হল হিব্রু এ গ্রীক থেকে অনূদিত প্রথম কাথলিক বাংলা বাইবেল (‘পবিত্র বাইবেল - জুবিলী বাইবেল’) যা জুবিলী-বর্ষে (২০০০) বাংলাদেশের কাথলিক বিশপ সম্মিলনী দ্বারা প্রকাশিত হয়েছিল। অন্যান্য কর্মসূচীর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল বাংলায় অনূদিত প্রাহরিক উপাসনা যা মুটামুটি ১০০০ খ্রীষ্টীয় প্রাচীন উপদেশ-সংগ্রহ, রবিবাসরীয় ও পর্বীয় সুসমাচার সংক্রান্ত প্রাচীন উপদেশাবলি, সামসঙ্গীত ও ধর্মীয় গানের সুর, বাইবেল সংক্রান্ত ব্যাখ্যামূলক পুস্তক ইত্যাদি। এ সকল পুস্তক ধর্মশিক্ষাদানের সময়ে যথেষ্ট উপকারে আসে। এছাড়াও ব্রাদারদের সামাজিক কর্মকাণ্ড সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম ও হিন্দু সম্প্রদায়ের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ ও সুন্দর সম্পর্ক গড়ে তুলেছে। এতে আন্তধর্মীয় সংলাপের প্রচেষ্টাও উপকৃত হয়।

ব্রাদারগণ সমাজে বসবাসরত সকল শ্রেণীর জনগণের সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং মানবদরদী কর্মকাণ্ডের দিকেও সুনজর দেয়। তারা এ সকল ক্ষেত্রে হিন্দু, মুসলিম ও খ্রীষ্টান সকলকেই সমান ভাবে দেখে।
কতগুলো ক্ষেত্র রয়েছে যেগুলো বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া সম্ভব নয়: গরিব ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য স্কুল বেতন ও প্রয়োজনীয় পুস্তক, অসুস্থদের জন্য ঔষধ, বিধবাদের জন্য সেলাই মেশিন, ছাগল ও হাঁস-মুর্গি, গরিব মেয়েদের বিবাহের জন্য অর্থনৈতিক সাহায্য ইত্যাদি। ব্রাদারদের কাজের বিশেষ দুটি লক্ষ্য উল্লেখযোগ্য তথা, শিক্ষার প্রাধান্য (স্কুল কলেজ নির্মাণ ও সংস্কার) ও বিশুদ্ধ জলের জন্য গভীর নলকূপ খনন। আশ্রমের কর্মক্ষেত্র আশ্রম থেকে পশ্চিম দিকে ১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত এবং বসবাসরত জনসংখ্যা আনুমানিক পঞ্চাশ হাজার।


আমাদের নির্মিত একটি স্কুল

সাধু বেনেডিক্ট যেমনটি চান তাঁর শিষ্যেরা ধার করে নয় বরং নিজেরা কাজ করে জীবন ধারণ করবে, তেমনি আমাদের গরুর ফার্ম থেকে (দুধ বিক্রি, গবর সার বিক্রি, কখনো বা গরু/বাছুর বিক্রি) প্রতিদিন অর্থ উপার্জন করে এবং নিজেদের প্রয়োজনের জন্য বাগানে শাকসবজি চাষ করে। এ থেকে বলা যায় আশ্রমের ব্রাদারগণ নিজেদের প্রয়োজনীয় অর্থনৈতিক দিক থেকে আত্মনির্ভরশীল। কিন্তু আমাদের চারপাশে বসবাসরত জনগণের প্রয়োজনীয়তা দেখে আমরা সহজে তা এড়াতে পারি না, অথচ আমাদের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আমরা তাদের প্রয়োজনীয় সাহায্য করতে পারি না। আমাদের কর্মকাণ্ড দেখার জন্য ফটো-সো-তে যান।


আমাদের ফার্ম

এজন্য, শ্রদ্ধেয় পাঠক-পাঠিকা, আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করি। ইচ্ছা করলে আপনিও আমাদের সঙ্গে নিজ অবদান রাখতে পারেন। আপনার অবদানের জন্য পৃষ্ঠার নিচে ডোনেশন ক্লিক করুন।

শান্তি !

সুচীপত্র  |  আমাদের জীবন  |  জুবিলী বাইবেল  |  উপাসনা  |  খ্রীষ্টমণ্ডলীর পিতৃগণ  |  ডোনেশন   |  অন্যান্য আশ্রম  |  মানচিত্র